স্পট ট্রেডিং এবং ফিউচার ট্রেডিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী কী

Binance
2021-05-31 03:38

ক্রিপ্টো ফিউচার ট্রেডিং কী?

ক্রিপ্টো ফিউচার এমন একটি কন্ট্রাক্ট যা একটি নির্দিষ্ট ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য উপস্থাপন করে। আপনি যখন কোনো ফিউচার কন্ট্রাক্ট ক্রয় করেন তখন আপনি কোনো অন্তর্নিহিত ক্রিপ্টোকারেন্সির মালিক হন না। বরং, আপনি একটি কন্ট্রাক্টের মালিক হন, যার অধীনে আপনি পরবর্তী কোনো তারিখে একটি নির্দিষ্ট ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় বা বিক্রয় করতে সম্মত হয়ে থাকেন।

ক্রিপ্টো স্পট ট্রেডিং কী?

স্পট মার্কেটে, আপনি তাৎক্ষণিক সরবরাহের জন্য বিটকয়েন এবং ইথেরিয়ামের মতো ক্রিপ্টোকারেন্সি ক্রয় করে বিক্রয় করেন। অন্য কথায়, ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলো সরাসরি বাজারের অংশগ্রহণকারীদের (ক্রেতা এবং বিক্রেতাদের) মধ্যে ট্রান্সফার হয়। স্পট মার্কেটে আপনার কাছে ক্রিপ্টোকারেন্সিগুলোর প্রত্যক্ষ মালিকানা থাকে এবং প্রধান ফর্কে ভোট দেওয়া বা স্ট্যাকিংয়ে অংশগ্রহণের মতো অর্থনৈতিক সুবিধা পাওয়ার অধিকারী হন।

ক্রিপ্টো স্পট ট্রেডিং এবং ক্রিপ্টো ফিউচার ট্রেডিংয়ের মধ্যে পার্থক্য কী কী?

1. লিভারেজ - লিভারেজ ফিউচার ট্রেডিংকে অত্যন্ত মূলধন-সাশ্রয়ী করে তোলে। ফিউচার কন্ট্রাক্ট দিয়ে আপনি বাজার মূল্যের একটি ভগ্নাংশে 1টি BTC ফিউচার পজিশন খুলতে পারেন। অন্যদিকে, স্পট ট্রেডিং লিভারেজ প্রদান করে না। উদাহরণস্বরূপ, স্পট মার্কেটে 1 BTC কেনার জন্য আপনার হাজার হাজার ডলার লাগবে। আপনার কাছে শুধুমাত্র 10,000 USDT উপলভ্য আছে বলে ধরে নিলে এই ক্ষেত্রে আপনি শুধুমাত্র 10,000 USDT মূল্যমানের বিটকয়েন কিনতে পারবেন।
2. লং বা শর্ট-এ নমনীয়তা- যদি আপনি স্পট মার্কেটে ক্রিপ্টোকারেন্সি ধরে রাখেন, তবে সময়ের সাথে সাথে আপনার ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্য বাড়ার সাথে সাথে আপনি মূলধনের অতিমূল্যায়ন থেকে লাভবান হতে পারেন। অন্যদিকে, ফিউচার কন্ট্রাক্টগুলো আপনাকে উভয় দিক দিয়ে স্বল্প-মেয়াদী মূল্য পরিবর্তন থেকে লাভ করার সুযোগ দেয়। এমনকি, বিটকয়েনের দাম কমে গেলেও, দাম কমতে থাকায় আপনি নিম্নমুখী প্রবণতায় অংশগ্রহণ করে লাভ করতে পারবেন। ফিউচার কন্ট্রাক্টগুলো অপ্রত্যাশিত ঝুঁকি এবং মূল্যের চরম উঠানামার বিরুদ্ধে সুরক্ষার জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে, যা সেগুলোকে মাইনার ও দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগকারীদের জন্য আদর্শ করে তোলে।
3. তারল্য- মাসে কয়েক ট্রিলিয়ন ডলার পরিমাণ সহ, ক্রিপ্টো ফিউচার মার্কেটগুলো গভীর তারল্য সরবরাহ করে। উদাহরণস্বরূপ, বিটকয়েন ফিউচার মার্কেটে গড়ে মাসিক $2 ট্রিলিয়ন ডলার টার্নওভার হয়, যা বিটকয়েন স্পট মার্কেটগুলোতে ট্রেডিংয়ের পরিমাণকে ছাড়িয়ে যায়। এর বিপুল তারল্য মূল্যের আবিষ্কারকে উৎসাহিত করে এবং ট্রেডারদেরকে দ্রুত ও দক্ষতার সাথে বাজারে লেনদেন করতে দেয়।
4. ফিউচার বনাম স্পট প্রাইস - ক্রিপ্টোকারেন্সির দাম ক্রেতা ও বিক্রেতারা সরবরাহ ও চাহিদার একটি অর্থনৈতিক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নির্ধারিত হয়। স্পট প্রাইস হলো স্পট মার্কেটে সকল লেনদেনের জন্য নির্ধারণকারী মূল্য। অন্যদিকে, ফিউচারের মূল্য বিদ্যমান স্পট প্রাইস এবং ফিউচারের প্রিমিয়ামের উপর ভিত্তি করে নির্ধারিত হয়। ফিউচার প্রিমিয়ামটি ধনাত্মক বা ঋণাত্মক হতে পারে। ধনাত্মক প্রিমিয়াম ইঙ্গিত দেয় যে ফিউচারের মূল্য স্পট প্রাইসের চেয়ে বেশি; অন্যদিকে, একটি ঋণাত্মক প্রিমিয়াম নির্দেশ করে যে, ফিউচারের মূল্য স্পট মূল্যের চেয়ে কম। সরবরাহ ও চাহিদা পরিবর্তনের ফলে ফিউচারের প্রিমিয়াম ওঠানামা করতে পারে।